২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
চৌদ্দগ্রাম থানায় পুলিশের কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিবের পরিবার ও কনকাপৈত ইউনিয়ন আ”লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা,সরোয়ারদী মেম্বারের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত, কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের অভিযানে ফেনসিডিল, গাঁজাসহ ৪জন আটক চৌদ্দগ্রামে বিলকিছ আলম পাঠাগার পরিদর্শন করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস,এম,মুঞ্জুরুল হক কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম নিউ বিসমিল্লাহ সুইর্টস এর শুভ উদ্ধোধন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতে বিভিন্ন দোকানে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা চাঞ্চল্যকর মামলায় পলাতক আসামী স্ত্রী রোকেয়া আক্তার শিউলী কে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-৭, গুনবতীর দুবাই প্রবাসীকে হত্যা করে সন্তান নিয়ে রাতের আঁধারে উধাও স্ত্রী চৌদ্দগ্রামে হাজী সিদ্দিকুর রহমানের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব শুভাকাক্ষী নিয়ে নৌকা ভ্রমণ ও মিলন মেলা ২০২১ অনুষ্ঠিত কুমিল্লায় থানাতে কর্মরত অবস্থায় পুলিশ সদস্যের মৃত্যু !
  • প্রচ্ছদ
  • চট্টগ্রাম >> লিড
  • চৌদ্দগ্রামে আলকরায় অরক্ষিতভাবে মুক্তিযোদ্ধার গণকবর!
  • চৌদ্দগ্রামে আলকরায় অরক্ষিতভাবে মুক্তিযোদ্ধার গণকবর!

    জহিরুল ইসলাম সুমনঃ
    প্রতি বছর বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস আসলে সরকারী-বেসরকারীসহ বিভিন্ন সংগঠন হাজার হাজার টাকা খরচ করে দিবসগুলো উৎযাপন করে। অথচ যাদের ত্যাগের বিনিময় এই স্বাধীনতা ওই সব শহীদ বীর সেনানীদের পরিবারের কতটুকু খবর রাখে সংগঠন গুলো? অন্তত সব সময় খবর না রাখতে পারলেও বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবসে হলেও তাদের খোজ খবর রাখা যৌক্তিক নয় কি? যাদের জীবনের বিনিময় এই স্বাধীনতা-তাঁদের গণকবরটি আজ অরক্ষিত ও অবহেলিত ভাবে জঙ্গলে ঘেরা অবস্থায় পড়ে আছে। সে দিকে কেউ খেয়াল রাখার প্রয়োজনও মনে করছে না। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষেও মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনসহ কেউ এর খেয়াল রাখেনি। প্রায় ৫-৬ বছর আগে পদুয়া সুফিয়া রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থাকাকালিন অনিল চন্দ্র দেব নাথ ছাত্র-ছাত্রীদেরকে নিয়ে বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস আসলে এই গণকবরটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতেন। ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংগঠন থেকে কোন কর্মসুচি এ পর্যন্ত দেখা যায় নি।
    গণকবরটিতে মুক্তিযোদ্ধাদের কবর দেয়া পদুয়ার কাদের ও সরুজ মিয়া জানান, ‘১৯৭১ সালে একদল মুক্তিযোদ্ধা এ পথ দিয়ে যাওয়ার সময় পাক বাহিনীর সামনে পড়লে তারা কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাকে গুলি করে। অন্যরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে পাকবাহিনী চলে গেলে আমরা কয়েকজন যুবক মিলে এদেরকে হিন্দুবাড়ীর পুকুরের পাড়ে একটি কবরে সমাহিত করি। এ গণকবরটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পদুয়া রাস্তার মাথা থেকে ২০০ গজ পশ্চিমে হিন্দুবাড়ীর পুকুর পাড়ে। সরকারের উচিত-গণকবরটি সংরক্ষণ করা। তাহলে আশ-পাশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে আরও বেশি জানতে পারবে’।
    এ ব্যাপারে আলকরা ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার পেয়ার আহম্মদ গণকবরটির কথা স্বীকার করে বলেন, ‘এখানে সরকারী ভাবে একটি সৃতিস্তম্ব নির্মাণ করে দিলে সবচেয়ে সুন্দর ও ভালো হতো’।

    আরও পড়ুন

    error: Content is protected !!